রাসায়নিক বোমা হামলা চালাচ্ছে সিরিয়া সরকার!

আন্তর্জাতিক
Typography
  • Smaller Small Medium Big Bigger
  • Default Helvetica Segoe Georgia Times

রাসায়নিক বোমা হামলা চালাচ্ছে সিরিয়া সরকার!


সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কের কাছে বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত পূর্ব ঘোতা অঞ্চলে দেশটির সরকারি বাহিনীর বিমান হামলায় গত সাতদিনে নিহত হয়েছে নারী-শিশুসহ কমপক্ষে ৫০০ জন। জাতিসংঘের ডাকা যুদ্ধবিরতির পরও অঞ্চলটিতে হামলা বন্ধ হয়নি, বরং সরকারি বাহিনীর বিরুদ্ধে নিষিদ্ধ রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে।
বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, গত রোববার নিরাপত্তা পরিষদের এক বৈঠকে সিরিয়ায় ৩০ দিনের যুদ্ধবিরতির সিদ্ধান্ত নেয় জাতিসংঘ। এর কিছু সময়ের মধ্যেই আবারও পূর্ব ঘোতায় বোমা হামলা চালায় সিরিয়া। রোববার ওই হামলার পর স্থানীয় বাসিন্দাদের শরীরে বিষাক্ত ক্লোরিন গ্যাসের লক্ষণ দেখা যায় বলে দাবি করেছে পূর্ব ঘোতার স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ।
সিরিয়ার অন্তর্বর্তীকালীন বিরোধী সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, পূর্ব ঘোতার আল-সায়ফোনিয়া এলাকায় বড় একটি বিস্ফোরণের পর পরই আহত ব্যক্তি, অ্যাম্বুলেন্স চালক ও স্থানীয়রা বাতাসে ক্লোরিনের অস্তিত্ব টের পায়। এ সময় ১৮ জনকে জরুরী অক্সিজেন সেবা দেওয়া হয়েছে। প্রাণহানি হয়েছে কমপক্ষে এক শিশুর।
রাসায়নিক হামলার বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে কোনো মন্তব্য করেনি সিরিয়ার সেনাবাহিনী। তবে তারা এর আগেও বিভিন্ন সময়ে রাসায়নিক হামলার কথা অস্বীকার করেছে।
এ বিষয়ে যুক্তরাজ্যভিত্তিক সিরীয় পর্যবেক্ষণ সংস্থা সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস জানায়, দমবন্ধ হয়ে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। তবে কোনো বিষাক্ত গ্যাস ব্যবহার করা হয়েছে কি না তা নিশ্চিত নয়।
সিরিয়া এককভাবে কোনো গোষ্ঠী, সরকার বা দলের নিয়ন্ত্রণে নেই। দেশটির উত্তরাঞ্চল রয়েছে পিকেকে, ওয়াইপিজি ও এসডিএফ-এর মতো বিভিন্ন কুর্দি বিদ্রোহী গোষ্ঠীর দখলে। দক্ষিণাঞ্চল শাসন করছেন সিরিয়া সরকারের বর্তমান প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদ। এছাড়া ছড়িয়ে-ছিটিয়ে কিছু অঞ্চল দখল করে রেখেছে কয়েকটি বিদ্রোহী দল ও ইসলামিক স্টেট (আইএস)। এমনই বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত একটি অঞ্চল পূর্ব ঘোতা।
৪০ হাজার বাসিন্দার এই অঞ্চলটি ২০১৩ সাল থেকে অবরোধ করে রেখেছিল সিরিয়ার সরকারি বাহিনী। কারণ আসাদ নিয়ন্ত্রিত রাজধানী দামেস্কের কাছেই বিদ্রোহীদের পূর্ব ঘোতা সরকারের জন্য হুমকি।
গত রোববার থেকে সেখানে বিমান ও মর্টার হামলা চালানো শুরু হয়। হামলায় আসাদ সরকার পাশে পায় মিত্র রাশিয়াকে। সাত দিনের হামলায় এখন পর্যন্ত ৫০০ জন নিহত হয়েছে বলে জনিয়েছে সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস। এছাড়া আহত হয়েছে ২ হাজারের বেশি মানুষ।