প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সঙ্গে সত্যের সম্পর্ক নেই: ফখরুল

রাজনীতি
Typography
  • Smaller Small Medium Big Bigger
  • Default Helvetica Segoe Georgia Times

প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সঙ্গে সত্যের সম্পর্ক নেই: ফখরুল


বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী সংবাদ সম্মেলনে এমন কিছু বলেছেন যার সঙ্গে সত্যের কোন সম্পর্ক নেই।

সোমবার প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় তিনি এসব কথা বলেন। বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয় গুলশানে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন মির্জা ফখরুল।

কোনো দলের জন্য নির্বাচন থেমে থাকবে না বলে প্রধানমন্ত্রী যে বক্তব্য দিয়েছেন তার প্রতিক্রিয়ায় মির্জা ফখরুল বলেন, এ ধরনের অভ্যাস তাদের আছে। ২০১৪ সালে যে নির্বাচন তারা করেছে সেই নির্বাচনে শতকরা ৫ জন লোকও ভোট দিতে যায়নি। ১৫৪ জন বিনা ভোটে নির্বাচিত হয়েছে। সেই সংসদ তারা জাতির ওপর চাপিয়ে দিয়েছেন- যে সংসদে জনগণের কোন প্রতিনিধিত্ব ছিল না।

তিনি বলেন, ক্ষমতা কুক্ষিগত করার জন্য, একদলীয় শাসন পাকাপোক্ত করার জন্য তারা আবার একটা একতরফা একদলীয় নির্বাচন করার পায়তারা করছেন। সেইভাবে তারা একটা নীলনকশা করেছেন। সেই নীল নকশা অনুযায়ীই বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে একটি মিথ্যা মামলা দিতে সম্পূর্ণ একটি ভূয়া নথির ভিত্তিতে তারা আদলতকে ব্যবহার করেছেন। আর আদালতের কাঁধে বন্দুক চাপিয়ে এই দণ্ড দিয়েছে।

বিএনপির গঠনতন্ত্র নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের জবাবে তিনি বলেছেন, বিএনপির গঠনতন্ত্র সম্পর্কে আগে জানতে হবে। জেনে তারপর মন্তব্য করতে হবে। পরিষ্কার ভাবে বলে দিতে চাই, গঠনতন্ত্রে ৭ ধারা বিষয়ে বলার আগে জানতে হবে। ১৯৭২ সালের গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের ৮ ধারা বাতিল হয়ে গেছে। এর আলোকেই বিএনপির গঠনতন্ত্রের ধারাটিও সংশোধন করা হয়েছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, একথা ঠিক যে খালেদা জিয়াকে দণ্ড দিয়েছে আদালত। কিন্তু সেই আদালত কাদের নিয়ন্ত্রণে তা সকলে জানে। সাবেক প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা নিম্ন আদালতের বিচারকদের নিয়োগ ও পরিচালনার জন্য বিধি গেজেট করার বিষয়ে আপত্তি দিয়েছিলেন। সরকার ষোড়শ সংশোধানী রায়কে কেন্দ্র করে তাকে দেশ থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে। তাকে পদত্যাগ করতে বাধ্য করেছে এবং ওই বিধানটাকে বহাল রেখেছে। এতে বিচারবিভাগের ওপর তাদের নিয়ন্ত্রণ পোক্ত হয়েছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, বিএনপির গঠনতন্ত্র নিয়ে, কে দলের প্রধান হলো, কে হলো না তা নিয়ে সরকারের এত মাথাব্যাথা কেন, তাদের এত আশঙ্কা কেন। বিএনপি ও খালেদা জিয়াকে তাদের এত ভয় কেন। তিনি নির্বাচন করতে পারবেন কি পারবে না তা নিয়েও তাদের দুশ্চিন্তা কেন। নির্বাচন করতে না পারলে তাদের সুবিধা হয় এটা খুব ভালো করে বুঝি। তবে খালেদা জিয়া নির্বাচনে না গেলে সেই নির্বাচন এদেশের কারো কাছে গ্রহনযোগ্য হবে না।