খালেদার যাবজ্জীবন সাজার প্রত্যাশা দুদকের

বিএনপি
Typography
  • Smaller Small Medium Big Bigger
  • Default Helvetica Segoe Georgia Times

খালেদার যাবজ্জীবন সাজার প্রত্যাশা দুদকের

অনলাইন ডেস্ক: গত দশ বছর নিষ্ঠার সঙ্গে মামলা পরিচালনা করেছি। দু’শ’ ৬১ কার্যদিবসে ৩২ জন সাক্ষী আদালতে উপস্থাপন করেছি। মামলাটি বর্তমানে চূড়ান্ত পরিণতির দিকে যাচ্ছে। আমি মনে করি দুদক মামলাটি প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছে। আমরা খালেদা জিয়াসহ সব আসামির যাবজ্জীবন সাজা প্রত্যাশা করছি। এ প্রত্যাশার কথা বলেন মামলাটির প্রধান প্রসিকিউটর দুর্নীতি দমন কমিশনের স্পেশাল পিপি অ্যাডভোকেট মোশাররফ হোসেন কাজল।

বৃহস্পতিবার (০৬ ফেব্রুয়ারি) মামলাটির রায় ঘোষণার জন্য দিন ধার্য রয়েছে।
কাজল বলেন, গত দশ বছর নিষ্ঠার সঙ্গে মামলা পরিচালনা করেছি। দু’শ’ ৬১ কার্যদিবসে ৩২ জন সাক্ষী আদালতে উপস্থাপন করেছি। আসামিপক্ষ মামলার বিভিন্ন বিষয় চ্যালেঞ্জ করে ২৫ বার উচ্চ আদালতে গিয়েছিলো। কিন্তু তারা সফল হয়নি। তারা চার্জশিট আমলে নেওয়ার বিরুদ্ধে গিয়েছে। চার্জগঠনের বিরুদ্ধে গিয়েছে। পুনঃতদন্তের জন্য গিয়েছে। এভাবে ২৫ বার গিয়েও তারা সফল হয়নি। মামলাটি বর্তমানে চূড়ান্ত পরিণতির দিকে যাচ্ছে। আমি মনে করি দুদক মামলাটি প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছে। আমরা খালেদা জিয়াসহ মামলার সব আসামির যাবজ্জীবন সাজা প্রত্যাশা করছি।

খালেদা জিয়াসহ সব আসামির বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ৪০৯ ধারা এবং খালেদা জিয়া ও সালিমুল হক কামালের বিরুদ্ধে দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারায় চার্জ গঠন করা হয়েছে। দণ্ডবিধির ৪০৯ ধারায় সর্বোচ্চ সাজা যাবজ্জীবন ও দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারায় সর্বোচ্চ সাজা ৭ বছর উল্লেখ আছে।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া বলেন, খালেদা জিয়া কিংবা মামলার কোনো আসামিই দুর্নীতি করেন নি। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের কোনো টাকাই আত্মসাৎ হয়নি। ট্রাস্টের টাকা সুদে আসলে বহুগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। আসামিদের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক উদ্দেশে এ মামলা দায়ের করা হয়েছে। ন্যায়বিচার হলে তিনি খালাস পাবেন।

খালেদা জিয়ার অপর আইনজীবী অ্যাডভোকেট আব্দুর রেজ্জাক খান মামলার শুনানিতে খালেদা জিয়াসহ অন্য আসামির বিরুদ্ধে মামলা প্রমাণিত হয়নি দাবি করে সব আসামির খালাস দাবি করেছিলেন।