নির্বাচনী রূপরেখায় লাভ হবে না, বিএনপিকে ড. হাছান

আওয়ামীলীগ
Typography
  • Smaller Small Medium Big Bigger
  • Default Helvetica Segoe Georgia Times

বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, নির্বাচনী সরকারের রূপরেখা দিয়ে কোনো লাভ হবে না। সংবিধানের আলোকে নির্বাচনকালীন সময়ে বর্তমান সরকারই ক্ষমতাই থাকবে। ওই সরকারের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করবেন শেখ হাসিনা।

মঙ্গলবার (২৩ জানুয়ারি) সকালে ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটির গোল টেবিল মিলনায়তনে বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরিষদ আয়োজিত ‘আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে বিএনপির ষড়যন্ত্র ও আমাদের করণীয়’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

 

আওয়ামী লীগের অন্যতম মুখপাত্র ড. হাছান মাহমুদ বলেন, আপনারা হরেক রকমের রূপরেখা দিতে পারেন কিন্তু সংবিধানের বাইরে কিছুই হবে না। সংবিধানের আলোকে বর্তমান সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচনকালীন সময়ে বর্তমান সরকারই ক্ষমতায় থাকবে। তবে এ সরকারের আকার ছোট হতে পারে। 

‘এ পদ্ধতি ভারতে, যুক্তরাজ্যে, জাপানে, অস্ট্রেলিয়ায় এবং সংসদীয় গণতন্ত্র যেসব দেশে চালু আছে সব দেশে অনুসরণ করা হয়। সুতরাং বাংলাদেশে বিএনপির মনগড়া রূপরেখা দিয়ে কোনো লাভ হবে না।’

‘বিএনপি জন্মের গ্লানি থেকে বেরিয়ে আসতে পারেনি’ উল্লেখ করে তিনি  বলেন, বিএনপি ক্ষমতার উচ্ছিষ্ট বিলিয়ে রাজনীতির কাকদের সন্নিবেশ করে। এর মাধ্যমে দলটির জন্ম হলেও আমরা আশা করেছিলাম এরশাদ বিরোধী এবং ১/১১ সরকার বিরোধী আন্দোলনে বিএনপি অংশ নিয়ে তারা তাদের জন্মের গ্লানি থেকে বেরিয়ে আসবে। 

‘পরবর্তীতে আমরা দেখতে পেলাম সামরিক ছাউনির মধ্যে যে বিএনপির জন্ম এবং জন্মের পরিচয়ের মধ্যে যে গ্লানি সেই গ্লানি থেকে তারা মুক্ত হতে পারেনি। বিএনপি গণতন্ত্রকে হত্যা করার লক্ষ্যে কাজ করছে,’ অভিযোগ করেন ড. হাছান। 

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামের সাম্প্রতিক বক্তব্যের সমালোচনা করে তিনি বলেন, আপনারা ২০১৪ সালে হুংকার দিয়ে বলেছিলেন-দেশে কোনো নির্বাচন হতে দেওয়া হবে না। তখন ২০ দলীয় জোটের বিষদাঁত বাংলাদেশের মানুষ ভেঙে দেয়। বিএনপি এখন দন্তহীন বিষধর সাপে রূপান্তরিত হয়েছে।

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি মো. জিন্নাত আলী খান জিন্নাহর সভাপতিত্বে সভায় সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকু, জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি শুক্কুর মাহমুদ, তাঁতী লীগের সভাপতি সাধনা দাশ গুপ্তা, আওয়ামী লীগ নেতা বলরাম পোদ্দার, এম এ করিম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।